সিলেট রেলওয়ে স্টেশনের ৩নং প্লাটফর্মে বসে প্রেমিক প্রেমিকা বসে গল্প করছিল। ঐ সময় ঢাকা থেকে সুরমা মেইল সিলেট রেলওয়ে স্টেশনের ৩নং প্লাটফর্মে এসে পৌঁছলে হঠাৎ করে ট্রেনের নিচে ঝাঁপ দেয় প্রেমিক ছেলেটি। খবর পেয়ে রেলওয়ে থানা ঘটনাস্থলে পৌঁছে লাশটি উদ্ধার করে রেলওয়ে স্টেশনে নিয়ে আসে এবং সাথের প্রেমিকাকে জিআরপি থানায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক রাখা হয়।
নিহত যুবকের নাম সজিব মিয়া (২২)। সে নরসিংদী জেলার পলাশ থানার ঘোড়াশাল চরপাড়া গ্রামের আমজাদ হোসেনের পুত্র। সাথের প্রেমিকা মেয়েটির নাম রেহেনা আক্তার রুমা। সে সিলেটের জৈন্তাপুর উপজেলার ফুলবাড়ী গ্রামের আব্দুল হান্নানের মেয়ে।

এ ব্যাপারে প্রেমিকা রুমা জানান, নিহত সজিব মিয়ার সাথে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে প্রায় ১ বছর পূর্বে পরিচয় হয়। পরিচয়ের এক পর্যায়ে তাদের সম্পর্কটা অনেকটা গভীর হয়ে যায়। নিহত সজিব মিয়া তার ভাই এবং ভাইয়ের স্ত্রীর সাথে রাগ করে সিলেটে এসে রুমাকে ফোন দিয়ে সিলেট রেল স্টেশনের আসার জন্য বলে। রুমা সজিবের ফোন পেয়ে সিলেট রেল স্টেশনে এসে দেখা করে। রেল লাইনের উপর বসে দুজনে গল্প করার ফাঁকে হঠাৎ ট্রেন আসতেই সজিব চলন্ত ট্রেনের নিচে ঝাঁপ দেয়। এ বিষয়ে রুমা আর কিছু বলতে পারে না।

তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই মোজাম্মেল ইসলাম রিপন জানান, ময়না তদন্তের জন্য লাশ সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হবে এবং নিহত ছেলের আত্মীয় স্বজনের সাথে পলাশ থানার মাধ্যমে যোগাযোগ করে লাশ নিহতের পারিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে। মেয়েটির পরিবারের সাথেও যোগাযোগ করা হয়েছে। মেয়েটির পরিবারের লোকজন সিলেট আসছেন।