অ’পারেশনের টেবিলে রোগী রেখে পালালেন চিকিৎসক!

রিয়েল সিলেটঃ পটুয়াখালীর বাউফল উপজেলার একটি বেসরকারি হাসপাতালের অ’পারেশন টেবিলে রো’গী রেখে পা’লালেন আহম্মেদ কামাল তুষার নামে এক চিকিৎসক। রবিবার দুপুরে উপজেলার কালিশুরী ইউনিয়নের

কুমারখালী গ্রামে ‘স্লোব বাংলাদেশ’ নামে একটি বেসরকারি হাসপাতালে এ ঘটনা ঘটে। রোগীর নাম খাদিজা বেগম (৪০)। তিনি উপজেলার কেশবপুর ইউনিয়নের মমিনপুর গ্রামের জেলে সহিদুল ইসলাম সিকদারের স্ত্রী। রো’গীর অবস্থা বর্তমানে আ’শঙ্কাজনক। জানা গেছে,

পাঁচ সন্তানের জননী খাদিজা বেগম গত কয়েক দিন ধরে পেটের ব্য’থায় ভু’গছিলেন। তার স্বামী শনিবার বিকাল ৪টার দিকে তাকে স্লোব বাংলাদেশ নামে একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করেন। সংশ্লিষ্ট চিকিৎসক পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর জানান ওই গৃহবধূর পেটে টি’উমার হয়েছে, যা অ’পারেশন করতে হবে। রবিবার দুপুর ২টার দিকে গৃহবধূ খাদিজা

বেগমকে অ’পারেশন থি’য়েটারে নিয়ে যাওয়া হয়। চিকিৎসক আহম্মেদ কামাল তুষার রো’গীর অ’পারেশন করতে গিয়ে এক পর্যায়ে রোগীর শা’রীরিক অবস্থার অবনতি হয়। এ সময় তিনি রো’গীকে ফেলে পা’লিয়ে যান। এরপর হাসপাতালের কয়েকজন নার্স খাদিজার পেট সে’লাই করেন। নাম প্রকাশ না করার শর্তে একটি সূত্রে জানা যায়, রো’গীর টি’উমার অ’পারেশন করতে গিয়ে নি’তম্ব থেকে

জ’রায়ু পর্যন্ত কে’টে ফেলেন। এরপর অবস্থা বে’গতিক দেখে অ’পারেশ থি’য়েটারে তাকে ফেলে রেখে পা’লিয়ে যান আহম্মেদ কামাল। সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় এ রি’পোর্ট লেখা পর্যন্ত ওই গৃহবধূর অবস্থা শ’ঙ্কাটাপন্ন ছিল। ওই গৃহবধূর নিকটাত্মীয় জালাল আহম্মেদ জানান, খাদিজা বেগমের অবস্থা আ’শঙ্কাজনক। তিনি তীব্র ব্যথায় কা’তারেচ্ছেন। স্লোব হাসপাতাল থেকে তাকে উন্নত

চিকিৎসার জন্য বরিশাল শেরে বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার জন্য বলেছেন। অ’ভিযোগ অ’স্বীকার করে চিকিৎসক আহম্মেদ কামাল তুষার বলেন, রো’গীর জ’রায়ু কা’টেনি। যদি জ’রায়ু কে’টে থাকে, তাহলে আ’ল্ট্রাসোনোগ্রাম করলেই ধরা পড়বে। রো’গীর পে’টের সামান্য কে’টে যখন দেখি তার অবস্থা ভালো না, তখন আমি উন্নত চিকিৎসার পরামর্শ দিয়ে আসি। আমি পা’লিয়ে আসিনি।