কারা থাকছেন মন্ত্রীসভায়, প্রশ্নে যা জানালেন বাইডেন

রিয়েল সিলেটঃ মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনী জয়ের পর জো বাইডেন দ্রুত তার প্রশাসন গঠনের কাজ শুরু করেছেন। বার্তা সংস্থা এপি জানাচ্ছে, আগামী সপ্তাহের শুরুতে মন্ত্রিসভার শীর্ষ পদগুলোতে কে বসছেন তা জানাতে পারেন তিনি। বৃহস্পতিবার বাইডেন সাংবাদিকদের

বলেন, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব তিনি কাকে দেবেন তা ইতোমধ্যে ঠিক করেছেন। এ ছাড়া মন্ত্রিসভায় পররাষ্ট্রমন্ত্রী পদে তার মনোনীত ব্যক্তির নামও ঘোষণা করবেন শিগগিরই। পররাষ্ট্রমন্ত্রীর দৌঁড়ে রয়েছেন দেশটির সাবেক সহকারী জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অ্যান্টনি ব্লিনকেন এবং সাবেক সহকারী পররাষ্ট্রমন্ত্রী ক্রিস কুনস;

যিনি বাইডেনের আসনে জিতে সিনেটের পররাষ্ট্র কমিটির সদস্য। এপি লিখেছে, দুজনই জো বাইডেনের ঘনিষ্ঠজন হিসেবে পরিচিত। এ চূড়ান্তভাবে বিবেচনায় থাকা এই দুজনের প্রত্যেকেই ব্যক্তিগতভাবে কিংবা প্রকাশ্যে পররাষ্ট্রমন্ত্রী হওয়ার ইচ্ছার কথা জানিয়েছেন। বার্তা সংস্থা এপি জানাচ্ছে, বাইডেন আগামী সপ্তাহে তার মন্ত্রিসভার কিছু সদস্যের নাম ঘোষণা করতে পারেন। বিশেষ করে অর্থনীতি,

জাতীয় নিরাপত্তা ও জনস্বাস্থ্য বিভাগের দায়িত্ব কারা পাচ্ছেন তা জানানো হতে পারে। ভারতীয় বংশোদ্ভূত আমেরিকান অধ্যাপক অরুণ মজুমদার বাইডেনের জ্বালানিমন্ত্রী ছাড়াও বিবেক মূর্তি নামে আরও এক ভারতীয় বংশোদ্ভুত আমেরিকান বাইডেনের মন্ত্রিসভায় স্থান পেতে পারেন বলে জানা যাচ্ছে। বর্তমান প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প নির্বাচনে কারচুপির অভিযোগ তুলে হার মেনে নিতে অস্বীকৃতি জানিয়ে যে অবস্থানে অনড় রয়েছেন এর

বিপরীতে নিজের শক্ত অবস্থানের জানান দিতে হয়তো এমনটা করবেন বাইডেন। এপি লিখেছে, গণতন্ত্রের মৌলিক ভিত্তি অগ্রাহ্য করে শান্তিপূর্ণভাবে ক্ষমতা হস্তান্তরের পথে বাধা তৈরির চেষ্টা করছেন ট্রাম্প। অথচ নিয়ম অনুযায়ী জানুয়ারিতে ক্ষমতা ছাড়ার আগে বাইডেনকে তার সাহায্য করার কথা। অবশ্য বাইডেন তার প্রশাসন সাজানো নিয়ে কাজ করে যাচ্ছেন। বাড়িতে বসে ভার্চুয়ালি নানা বৈঠক করছেন। বিশেষ করে মন্ত্রিসভায় কারা কারা থাকছেন তাদের নির্ধারণের ক্ষেত্রে জোর দিয়ে কাজ করে যাচ্ছেন তিনি।

১৫ সদস্যের মন্ত্রিসভা গঠনে নানা পক্ষের চাহিদার বিষয়টি মাথায় রাখতে হচ্ছে তাকে। তবে রাজনৈতিক বাস্তবতাগুলোও মাথায় রাখতে হচ্ছে তাকে। বিশেষ করে খব কম আসনে বিভক্ত উচ্চকক্ষ সিনেটের বিষয়টি। এ ছাড়া তিনি বড় ধরনের যেসব সংস্কারের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন সেসবের কথা মাথায় রেখেও মন্ত্রিসভার সদস্য মনোনীতি করতে হচ্ছে তাকে। যেমন আধুনিক আমেরিকার ইতিহাসে সবচেয়ে বৈচিত্রময় সরকার গঠন করা। এতে প্রত্যাশার চেয়েও জটিল পরিস্থিতির মুখে পড়তে হচ্ছে তাকে। তবে সব পরিস্থিতি সামলে আগামী সপ্তাহে জো বাইডেন তার মন্ত্রিসভার শীর্ষস্থানীয় পদে মনোনীত ব্যক্তির নাম ঘোষণা করবেন বলে জানাচ্ছে এপি।