ধ’র্ষণে বাঁ’ধা পেয়ে মেয়ের মাথা কে’টে ফেলল বাবা

গত দুই বছর ধরে নিজের মে’য়েকে প্র’তিনিয়ত ধ’র্ষণ করে গিয়েছেন তাঁরই বাবা৷ আর প্রতিবারই কাউকে কিছু বললে মে’রে ফেলে দেওয়ার হু’মকি দিতো ধ’র্ষক বাবা৷ তারপর এক রাতে যখন তার বাবা তাকে ধ’র্ষণ

করতে উদ্যত হয় তখন বা’ধা দেন ত’রুণী৷ এতেই মাথায় আ’গুন জ্ব’লে যায় তাঁর বাবার৷ রে’গে গিয়ে ধা’রাল অ’স্ত্র দিয়ে মে’য়ের গ’লা কে’টে ফেলে৷ নিজের মে’য়ের সঙ্গে যে কেউ এমনটা করতে পারে, তা হয়তো এই ঘটনার খবর সামনে

না এলে কেউ ভাবতেই পারত না৷ এমন পৈ’শাচিক ঘটনার কথা জানাজানি হতে অনেকটা শো’রগোল পড়ে গিয়েছে৷ গত রাতে ভারতে ১৯ বছরের ওই ত’রুণী বাবাকে বা’ধা দেওয়ায় রে’গে গিয়ে মে’য়েকে গ’লা কে’টে খু’ন করার ঘটনা ঘটে। তারপর কা’টা মাথা উরওয়া

এলাকায় এবং দেহটি একটি না’লায় ফে’লে দেয়। এ ঘটনায় তার বড় মেয়ের বাবার বি’রুদ্ধে থানায় মা’মলা করার পর শনিবার অ’ভিযুক্তকে গ্রে’ফতার করা হয়। জানা গেছে, ঘা’তকের স্ত্রী ১৫ বছর আগে মা’রা যান। ২০১৫ সালে তাঁর বড় মেয়ের বিয়ে হয়ে যায়। তারপর থেকে

ছোট মেয়ে বাবার সঙ্গেই থাকত এবং সেই সুযোগেই সে ত’রুণীকে লা’গাতার ধ’র্ষণ করত। পুলিশ সুত্র থেকে জানা যায়, প্রতি বছরের মতো রাখিতে বোন তাঁর শ্বশুরবাড়ি না আসায় ঘা’তকের বড় মেয়ের স’ন্দেহ হয়। তিনি বাবাকে বোনের ব্যাপারে জিজ্ঞেস করলে সে বড় মেয়ের কাছে ছোট মে’য়েকে খু’নের

কথা সরাসরি স্বী’কার করে নেয়। তারপরই বাবার বি’রুদ্ধে পুলিশে অ’ভিযোগ দায়ের করেন ওই যু’বতী। সুনীল গুপ্তা জানান মৃ’ত ত’রুণীর দেহ উ’দ্ধারের পর ম’য়না ত’দন্ত শেষে তার বোনের কাছে সেগুলি তুলে দেওয়া হয়েছে এবং ঘা’তক বাবাকে জে’লে পাঠানো হয়েছে। তার বি’রুদ্ধে ধ’র্ষণ এবং খু’নের মা’মলা দায়ের করা হয়েছে। এখন আইন তার সর্বোপরি ব্যবস্থা নিবে।