মাটির নিচে আস্ত একটা গ্রাম, বসবাস ৩ হাজার মানুষের

চিনের এক র’হস্যময় গ্রাম, যেখানে সব বাড়িই রয়েছে মাটির তলায়। জেনে নেওয়া যাক এই গ্রাম স’ম্পর্কে কিছু তথ্য।

চিনের হেনান প্রদেশের সানমেনশিয়ায় দেখা মিলবে অদ্ভুত এই গ্রামের। এখানে প্রায় ২০০ বছর ধরে মাটির তলাতেই বাড়ি তৈরি করে বসবাস করছেন কয়েক হাজার মানুষ।

এই এলাকায় মাটির তলায় এমন অন্তত হাজার দশেক ঘরের সন্ধান মিলেছে। এই ধরনের ঘরগু’লিকে বলা হয় ‘ইয়ায়োডং’। এই চিনা শব্দের অর্থ হল ‘গুহা ঘর’ হেনান প্রদেশের

এই গুহা ঘরগু’লিতে এখনও হাজার তিনেক মানুষ বসবাস করেন। জানা গিয়েছে, এই বাসিন্দাদের অন্তত ছয় প্রজন্ম এখানে বসবাস করছেন।

এই ঘরগু’লি মাটি থেকে ২২-২৩ ফুট গভীরে তৈরি। এগু’লি লম্বায় ৩৩ থেকে ৩৯ ফুট পর্যন্ত হয়। মাটির তলায় তৈরি এই ঘরগু’লিতে তাপমাত্রা শীতকালে ১০ ডিগ্রি আর গ্রীষ্মে ২০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের বেশি থাকে না।

ঐতিহাসিকদের মতে, হেনান প্রদেশের এই গুহা ঘরগু’লিতে মানুষের বসবাস ২০০ বছরের হলেও চিনের পার্বত্য এলাকায় ৪০০০ বছর আগে, ব্রোঞ্জ যুগে এই ধরনের বাড়ি তৈরি হত।

বর্তমানে এইসব গুহা ঘরগু’লিতে বিদ্যুত সংযোগ-সহ সব আধুনিক ব্যবস্থা রয়েছে। স্থানীয়দের দাবি, ভূমিকম্পেও ক্ষতিগ্রস্ত হয় না এই ঘরগু’লি।২০১১ সাল থেকে এই গ্রামটির সংরক্ষণের ব্যবস্থা করেছে প্রশাসন বর্তমানে

এই ঘরগু’লি পর্যট’কদের জন্য় খুলে দেওয়া হয়েছে। ২১ ইউরো (প্রায় ১৬২১ টাকা) দিলেই এক মাসের জন্য ভাড়ায় মিলতে পারে এখানকার একটি ঘর। আর ৩২ হাজার ইউরোতে (প্রায় ২৫ লক্ষ টাকা) কিনেও নিতে পারেন এই ঘরগু’লি।