আযহারীর মাহফিল বন্ধে ডিসি অফিসে আলোচনায় কে কি বললেন জেনে নিন।

আজকের ডিসি অফিসের সম্পূর্ণ মতামত জেনে নিন মুল আলোচনা কে কি বললেনঃ ১)জৈন্তাপুর- আযহারী বানোয়াট কথা বলেন,উনি বিতর্কিত বৃহত্তর জৈন্তার উলামাদের মত হলো উনি আমাদের এলাকায় আসলে সং’ঘর্ষ হবে। বিগত বছর রাসূল নূরের তৈরি না,মাটির তৈরি এ বিষয় নিয়ে মতবিরোধ হওয়ায় একজন নি’হত হয়েছে আযহারি আসলে এরকম কিছু হতে পারে।

২)চতুলি হুজুর- আযহারী উদ্ভট ফতুয়া দিয়ে মানুষকে বিভ্রান্ত করছেন,স্বাধীনতা বিরুধী কথা বলেন,বর্তমান সরকারের সমালোচনা করেন।
৩)দূর্লভপুরী- আযহারী মওদূদীর বক্ত,জামাতের লোক,সাঈদীর অনুসারী।

৪)জৈন্তা উপজেলা চেয়ারম্যান-আমি সবার চেয়ারম্যান এবং তাফসির মাহফিলের সভাপতি, আমি নিরপেক্ষ ডিসি মহোদয় যে সিদ্ধান্ত দিবেন তা মানবো। ৫) ঝিঙ্গাবাড়ী ইউপি চেয়ারম্যান আব্বাস,আমি এই এলাকার সন্তান,বিগত ১৫ বছর থেকে এখানে তাফসির হচ্ছে এমনকি বিগত বছর আযহারি সাহেব ছিলেন, তিনি কোন বিতার্কিক কথা বলেননি।

আমরা ৮ এবং ৯ নং দুই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান দায়িত্ব নিলাম এখানে কোন সমস্যা হবেনা, যদি হয় আমরা জবাবদিহি থাকবো আপনারা দয়া করে অনুমতি দিন। ৬) ইসলামী ফাউন্ডেশনের ইমাম- এ মাহফিলের মাধ্যমে ইসলামের খেদমত হয় এগুলো অনেক ভালো বিতার্কিক বিষয় এড়িয়ে চলার সুপারিশ করেন এবং অনুমতি দেন।

৭)কানাইঘাট থানার ওসি- ডিসি মহোদয় অনুমতি দিলে আমরা নিরাপত্তার বিষয় ব্যবস্হা নিবো। ৮)জৈন্তা থানার ওসি-আমি হিন্দু লোক ইসলাম সম্পর্কে তেমন ধারণা নেই। ডিসি মহোদয় যা আদেশ করবেন তা যথাযথ পালান করবো।

৯)জেলা পুলিশ সুপার- আমি অবাক হই যখন দাড়িটুপি মাথায় দিয়ে আপনারা একজন আরেকজনের সমালোচনা করেন,কুরআনের মাহফিল বন্ধ করতে আসেন তখন আমরা খুবই মর্মাহত হই। এখানে কুরআনের কথা হয় মানুষ উপক্রিত হয় সেখানে আমি মুসলমান হয়ে বাধা কেন দিবো। আমি বিষয়টি ডিসি মহোদয়ের কাছে ছেড়ে দিলাম উনি যেটি সিদ্ধান্ত দিবেন আমরা তা মেনে নিবো।

১০) সর্বশেষ ডিসি মহোদয়- আমি কি জবাব দিবো আমরা সাধারণ মানুষ, আপনারা আলেম আপনাদের কাছথেকে আমরা ভালো কিছু শিখবো, উপদেশ গ্রহণ করবো আপনারা যদি এমন করেন তাহলে আমরা জাবো কোথায়। এ দেশে তাবলীগে মাধ্যমে, আযানের মাধ্যমে, ওয়াজ মাহফিলের মাধ্যমে ইসলামের কাজ হয় তা খুব ভালো।

আমি আগেই ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি আমরা যেহেতু নিরাপত্তার দায়িত্বে কাজ করি তখন আমাদেরকে বিভিন্ন পরিস্হিতির সম্মুখীন হতে হয়।
যেহেতু এটা বিতার্কিক বিষয়, এখানে সং’ঘর্ষ হওয়ার সম্ভাবনা আছে তাই আমি মাহফিল হবে এই অনুমতি দিতে পারছি না। তবে যাদের পক্ষে রায় গেছে তারা অতি উৎসাহি হয়ে অপর পক্ষকে গায়েল করবেন না।

আর যারা মাহফিল কমিটি আপনারাও মর্মাহত হবেন না। আযহারি সাহেব ছাড়া অন্য কোন বক্তা নিয়ে আসেন আমরা সার্বিক সহযোগীতা করবো। আপাতত ২০ তারিখ জৈন্তা,কানাইঘাট,এবং কোম্পানীগঞ্জের কোন মাহফিল হবে না। ধন্যবাদ সবাইকে।। এই ছিলো ডিসি অফিসের মূল আলেচনা।সুত্র ইনবক্স থেকে