বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে উচ্চ শিক্ষা গ্রহণে ভর্তির সুযোগ পেলেও অর্থের অভাবে ভর্তি অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে অদম্য মেধাবী সোহাগী বেগমের।

চলতি শিক্ষা বর্ষে সোহাগী ব্যবসা শিক্ষা শাখায় বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে (বেরোবি) সি ইউনিটে ভর্তি পরীক্ষায় মেধা তালিকায় ১৫তম স্থান দখল করেছে।

অদম্য মেধাবী সোহাগী বেগম লালমনিরহাটের আদিতমারী উপজেলার মহিষখোচা ইউনিয়নের দক্ষিণ বালাপাড়া গ্রামের দিনমজুর হারুণ অর রশিদের মেয়ে। ৪ ভাই বোনের মধ্যে দ্বিতীয় সোহাগী। বাকি ৩ ভাই বোন বিভিন্ন কলেজ লেখাপড়া করছেন।

সরেজমিন গিয়ে জানা গেছে, হারুণ হারুন-অর-রশিদ একজন দিনমজুর ও বর্গা চাষি। মাত্র বসতভিটা ছাড়া আর কিছুই নেই তাদের পরিবারের। ৪ ছেলে-মেয়ের লেখাপড়ার পেছনে অন্যের বাড়িতে কাজ করতে হয় তাকে। এক বেলা খেয়ে না খেয়ে দিনযাপন করলেও কখন হাত পাতেননি অন্যের কাছে। অবশেষে মেয়ের উচ্চ শিক্ষার জন্য সকলের সহযোগিতা কামনা করেন হারুণ অর রশিদ।

সোহাগী ব ২০১৫ সালে এসএসসি পরীক্ষায় মহিষ খোচা বহুমুখী স্কুল অ্যান্ড কলেজ থেকে বাণিজ্য বিভাগ থেকে জিপিএ-৫ এবং ২০১৭ সালে একই প্রতিষ্ঠান থেকে জিপিএ-৪.৬৭ পেয়েছেন। এরপর উচ্চ শিক্ষা গ্রহণের লক্ষ্যে রংপুরের বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষায় সি ইউনিটে মেধা তালিকায় ১৫তম স্থান দখল করেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তির সুযোগ পেয়েও অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে তার উচ্চ শিক্ষা। ভবিষ্যতে উচ্চ শিক্ষা গ্রহণ করে সোহাগী বিসিএস ক্যাডার হতে চায়। কিন্তু জীবনের শুরুতেই বড় বাঁধা হয়ে দাঁড়িয়েছে অর্থ। কোথায় পাবে টাকা, কে দিবেন টাকা? কে চালাবে পড়ার খরচ! এই চিন্তায় দিন কাটছে অদম্য মেধাবী সোহাগীর। দিন মজুর বাবার পক্ষে এ টাকা জোগাড় করা কষ্ট সাধ্য হয়ে পড়েছে। সোহাগীর সাথে যোগাযোগের মোবাইল নম্বর ০১৭৮০৫৩৫৪৫৭ অথবা ০১৭৫২৫৫১৬৩৫।