স্কুল ক্যাবিনেট নির্বাচনে ভোট শেষে হাতে কালি লাগানো হয়। আর ডাকসু নির্বাচনে নো কালি!
কোনটা গুরুত্বপূর্ণ ডাকসু নাকি স্কুল ক্যাবিনেট?

সম্প্রতি নিউজের পাতায় যে সংবাদ প্রথম অবস্থানে আছে গত কয়েকদিন থেকে তা হচ্ছে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র সংসদ নির্বাচন ।

নির্বাচনের দিন একপক্ষ ছাড়া বাকী সবাই নির্বাচনে কারছুপি অনিয়মের অভিযোগ এনে নির্বাচন বর্জন করেছেন। সোশাল মিডিয়ার সুবাধে নির্বাচনের দিন অনেক লাইভ পক্ষে বিপক্ষে দেখার সুযোগ হয়েছে। এর মধ্যে একটি অভিযোগ ছিল লাইনে দাঁড়িয়ে সামনের সারিতে যারা তারাই ঘুরে ফিরে ভোট প্রদান করছেন। তার কারন একজন একবার না বার বার ভোট দিচ্ছেন তা চিন্হিত করা যাচ্ছেনা যাবেই বা কি করে কি ভাবে প্রায় অর্ধ লক্ষ ভোটার কে কাকে চিনবে।

আর কে কাকে বলবে একটু আগে ভোট দিলা আবার দিতেছো কেন কারন সবাই বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ছাত্রী আবার কোন না কোন দলের নেতা কর্মী ।বিশ্ববিদ্যালয় কতৃপক্ষ বা বিশ্ববিদ্যালয়ে নির্বাচন কমিশন অনেকগুলা আচরন বিধি করেছেন যার কারনে অনেক ভাবে হাত পা বাধা অনেকের । আচরন বিধি মানার জন্য।

 

 

দেশের সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠে ভোটার ভোট দিয়ে যাবার পর চিন্হিত করার জন্য নাকি কার্ড পানচ করবে কার্ড থাকবে পকেটে কার্ড কেউ দেখতে চাইলে ও দেখতে পারবেনা। দেখতে গেলে সেই রকম সমস্যা হবে কারন ওনারা সবাই বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ছাত্রী এছাড়া কোন না কোন রাজনৈতিক দলের নেতা কর্মী।

এখন আসি আসল কথায় প্রাইমারি স্কুলে স্কুল ক্যাবিনেট নির্বাচনে ভোট শেষে হাতে কালি লাগানো হয়। যেখানে কয়েকশত ছাত্র ছাত্রী এছাড়া একই এলাকার হবার কারনে একে অন্যকে চিনতে পারে সহজে এমনকি তার পরিবারের পরিচিতি ও জানে একে অন্যের এছাড়া ঐসব শিশুরা শিক্ষকের সামনে আসলে তাদের ভয়ে সেই রকম অবস্থা তারা কখনও ভাবতেই পারবেনা জাল ভোট দিতে । তাদেরকে হাতে কালি লাগিয়ে চিন্হিত করা হচ্ছে ভোট প্রদান করেছে বলে কিন্ত বিশ্ববিদ্যালয় যেখানে ছাত্র ছাত্রীরা ভোট প্রদান করেছেন তাদের হাতে কালি লাগিয়ে চিন্হিত করা গেলোনা ভাবলেই অবাক লাগে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসির সাথে যখন ছাত্র ছাত্রীদের একটি প্রতিনিধি দল নির্বাচনের বিষয় নিয়ে আলাপ করে তখনকার ভিডিওতে দেখেছি তারা ঐ কথাই বলতেছেন যে তাদের দাবি ছিল কালি হাতে লাগিয়ে চিন্হিত করার জন্য যার দাম হয়ত পাঁচ ছয়শত টাকা । সেইটা রাখা গেলোনা।

এইটা বিশ্ববিদ্যালয়ের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির খেয়ালিপনা নাকি জেগে থেকে ঘুমানো বুঝা মুশকিল। তবে এইকথা বলতে পারি ঐটা ওনাদের ব্যর্থতা ছিল। এর দায় ওনাদের, এই ব্যবস্থাটা থাকলে হয়ত পরবর্তীতে এই অভিযোগটা আসতনা।

ডাকসু নির্বাচনে নো কালি!
কোনটা গুরুত্বপূর্ণ ডাকসু নাকি স্কুল ক্যাবিনেট ? স্কুল ক্যাবিনেট নির্বাচনে ভোট শেষে হাতে কালি লাগানো হয়। দেশের প্রতিটা নির্বাচন আজ প্রশ্নবিদ্ধ হচ্ছে কেন জানি এর উত্তর অনেকের ই জানা থাকলেও জানা নেই । আশা করর বিশ্ববিদ্যালয়ের নির্বাচন পরিচালনা কমিটিতে যারা ছিলেন তারা এর দায় নিয়ে যথাযথ সমাধান করে অন্তত দেশের সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়কে প্রশ্নের উর্ধে রাখবেন।