বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের টেস্ট ও টি-২০ দলের অধিনায়ক ও তারকা ক্রিকেটার সাকিব আল হাসানের সাথেও ঘনিষ্ঠ ছিলেন বিমান ছিনতাইয়ের চেষ্টার ঘটনায় নিরাপত্তাবাহিনীর হাতে নিহত পলাশ। স্বয়ং পলাশের সাথেই সাকিব আল হাসানের তোলা একটি ছবিতে সেটাই দেখা যাচ্ছে। বিমান ছিনতাইয়ের চেষ্টা ও পরে নিরাপত্তাবাহিনীর হাতে নিহত পলাশ তার ফেসবুক আইডিতে সাকিবের সাথে একটি ছবি আপলোড করেন গত বছরের ৩১ আগস্ট।

ফেসবুকে প্রকাশ করা এই ছবিতে রোববার নিহত পলাশ, ক্রিকেটার সাকিব আল হাসান ছাড়াও রয়েছেন পলাশের স্ত্রী চিত্রনায়িকা সিমলা। ফেসবুকে আপলোডের পর ছবির ক্যাপশনে নিহত পলাশ লেখেন- বউ (সিমলা), আমি আর শালা বাবু সাকিব। নিহত পলাশ ফেসবুকে পলাশ মাহিবি জাহান নামে আইডি ব্যবহার করতেন।

এ বিষয়ে পলাশের বাবা পিয়ার জাহান বলেন, অনেকের সাথেই পলাশের সম্পর্ক ছিল। ১৯৯০ সালে কাজের উদ্দেশে তিনি ইরাক চলে যান। সেখানে চার বছর থাকার পর দেশে ফিরে আসেন। পরে তিনি আবার সৌদি আরব যান। ২০১২ সালে তিনি আবার দেশে ফেরেন। এর মধ্যে ছেলে মোঃ পলাশ আহমেদ তাহেরপুর ইসলামিয়া আলিম মাদ্রাসা থেকে ২০১২ সালে দাখিল পরীক্ষা দিয়ে পাস করে। দাখিল পাস করে সে সোনারগাঁও ডিগ্রি কলেজে ভর্তি হয়। সেখানে পড়া অবস্থায় সে ঢাকায় চলে যায়। তারপর থেকে তার আচরণে পরিবর্তন দেখা দেয়।

তিনি আরো বলেন, একপর্যায়ে জানা যায়- পলাশ নাকি ঢাকায় চলচ্চিত্রে কাজ করার চেষ্টা করছে। তখন বাড়ির সঙ্গে তার যোগাযোগ ছিল না। মাঝে মাঝে বাড়িতে আসলেও এলাকার মানুষের সঙ্গে মিশতো না, কথাও বলতো না।

সর্বশেষ গত শুক্রবার বাড়ি থেকে যাওয়ার আগে পলাশ বলে, সে কাজের সন্ধানে দুবাই যাবে। রোববার চট্টগ্রামে বিমান ছিনতাইয়ের ঘটনায় পলাশের মৃত্যুর খবর তারা ফেসবুকের মাধ্যমে জানতে পারেন বলে জানান তিনি।

সোনারগাঁও থানার এসআই আবুল কালাম আজাদ জানান, বিমান ছিনতাই চেষ্টার ঘটনায় নিহতের ছবি রোববার রাত ১টার দিকে দুধঘাটা গ্রামের ফিয়ার জাহানের বাড়িতে নিয়ে দেখালে তারা ছবিটি পলাশের বলে নিশ্চিত করেন।

বাংলাদেশ বিমানের ঢাকা থেকে দুবাইগামী বিমান ছিনতাইয়ের ঘটনায় নিহতের নাম পলাশ আহমেদ। একদিন বিশ্বজুড়ে তোলপাড় সৃষ্টি করা এই ঘটনার মূল নায়ককে নিয়ে তৈরি হয়েছে নানা প্রশ্ন ও কৌতুহল। কে এই পলাশ আহমেদ? কি তার পরিচয়? শত কৌতুহলের মাঝে জানা গেছে এক চাঞ্চল্যকর তথ্য। ‘ম্যাডাম ফুলি’ খ্যাত চিত্রনায়িকা সিমলাকে বিয়ে করেছিলেন বিমান ছিনতাইয়ের ঘটনায় নিহত পলাশ আহমেদ। নিহত পলাশের পরিবার সূত্রেই জানা যায় এই কথা।

জানা যায়, ২০১৮ সালের এপ্রিল মাসের মাঝামাঝি সময়ে সোনারগাঁয়ের পিরোজপুর দুধঘাটা এলাকায় পলাশ আহম্মেদের বাড়িতে আসেন চিত্রনায়িকা সিমলা। ঐ সময় তার সাথে ছিলেন পলাশ আহমেদ। সে সময় নায়িকা সিমলা পলাশের বাবা পিয়ার জাহানকে জানিয়েছিলেন যে, তিনি পলাশকে বিয়ে করেছেন। পলাশও সিমলাকে নিজের স্ত্রী হিসেবে পরিচয় করিয়ে দেয় তার পরিবারের কাছে।

সোমবার সকালে সোনারগাঁও সদর উপজেলার পিরিজপুর ইউনিয়নের দুধঘাটা গ্রামে বিমান ছিনতাইয়ের চেষ্টার পর নিরাপত্তাবাহিনীর হাতে নিহত পলাশ আহমেদের বাড়িতে তার বাবা পিয়ার জাহানের সাথে নয়াদিগন্তের কথা হয়।

এসময় নিহত পলাশের বাবা পিয়ার জাহান জানান,‘২০১৮ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে সিমলা নামে এক মেয়েকে রাতের বেলা বাড়িতে নিয়ে আসে পলাশ। মেয়েটিকে চিত্রনায়িকা ও তার প্রেমিকা বলে আমাদের সাথে পরিচয় করিয়ে দেয়। দুই মাস পর এপ্রিল মাসে আবার সিমলাকে বাড়িতে নিয়ে এসে বিবাহিত স্ত্রী হিসেবে পরিচয় দেয় পলাশ। বিয়ের কথা সিমলাও আমাদের কাছে স্বীকার করে। এরপর ওই রাতেই তারা আবার ঢাকায় চলে যায়।’

তিনি আরো বলেন, সে সময় আমরা সিমলাকে বোঝানোর চেষ্টা করেছি, তাকে বলেছি– আমার ছেলেকে যেন ভালো পথে ফিরিয়ে আনে। ছোটবেলা থেকেই ছেলেটি অবাধ্য ছিল। পড়াশোনা ছেড়ে দিয়ে প্রবাস থেকে আমার পাঠানো টাকা সে নানা পথে খরচ করেছে।

নিহত পলাশের বাবা পিয়ার জাহান জানান, সর্বশেষ ২০-২৫ দিন আগে বাড়িতে আসে পলাশ। বাড়িতে আসার পর তার আচরণে বিরাট পরিবর্তন দেখা দেয়। পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়া শুরু করে, মসজিদে গিয়ে আজানও দিয়েছে। সর্বশেষ শুক্রবার বাড়ি থেকে যাওয়ার আগে বলেছে, সে কাজের সন্ধানে দুবাই যাবে। রোববার চট্টগ্রামে বিমান ছিনতাইয়ের ঘটনায় পলাশের মুত্যুর খবর ফেসবুকের মাধ্যমে জানতে পারেন তার পরিবার।