শুক্রবার (২৫ জানুয়ারি) চট্টগ্রাম পর্বের উদ্বোধনী ম্যাচে সিলেট অঞ্চলের প্রতিনিধিত্বকারী দলটি প্রতিপক্ষ রাজশাহী কিংসকে হারিয়েছে ৭৬ রানের বিশাল ব্যবধানে। এই ম্যাচে দলকে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন অলক কাপালি। ডেভিড ওয়ার্নার চোটের কারণে চলে যাওয়ার পর দলের অধিনায়ক করা হয়েছিল সোহেল তানভীরকে।

তবে সীমাবদ্ধতার প্রমাণ দেওয়া পাকিস্তানি ক্রিকেটারকে অধিনায়কত্ব থেকে সরিয়ে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে সিলেটের ‘লোকাল বয়’ অলককেই। শেষ পর্যন্ত তিনিই দলকে ফিরিয়েছেন জয়ের পথে।

টস হেরে ব্যাট করতে নেমে এদিন নির্ধারিত ২০ ওভারে ৬ উইকেট হারিয়ে ১৮০ রান জড়ো করে সিলেট সিক্সার্স। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৪২ রান করেন ওয়ান ডাউনে নামা জেসন রয়। মাত্র ২৮ বলের মোকাবেলায় ৪টি চার ও ২টি ছক্কার সাহায্যে এই ইনিংস গড়েন তিনি। এছাড়াও আফিফ হোসেন ২৯ বলে ২৮, লিটন দাস ১৩ বলে ২৪ ও সোহেল তানভীর ১০ বলে অপরাজিত ২৩ রান করেন।

রাজশাহী কিংসের পক্ষে মুস্তাফিজুর রহমান ২টি উইকেট শিকার করেন।

জবাবে খেলতে নেমে শুরুতেই দুই ওপেনার লরি ইভান্স ও মুমিনুল হককে হারায় রাজশাহী কিংস। শুরুর থাক্কা সামাল দেওয়ার চেষ্টা করেন একাদশে সুযোগ পাওয়া ফজলে মাহমুদ রাব্বি। ৪১ বলের মোকাবেলায় ৫০ রান করে তিনি সাজঘরে ফেরার পর আবারও ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়ে রাজশাহী।

শেষ পর্যন্ত ঐ ব্যাটিং বিপর্যয় প্রতিরোধ করার জন্যও কারও ব্যাটই প্রয়োজন মাফিক চওড়া হয়ে উঠতে পারেনি।

অলক কাপালির বিচক্ষণ অধিনায়কত্বে এদিন বোলাররাও দেখিয়েছেন নৈপুণ্য। সোহেল তানভীর ও মোহাম্মদ নাওয়াজ পেস-স্পিনের সমন্বয়ে শিকার করেন ৩টি করে উইকেট। এছাড়া ২টি উইকেট শিকার করেন তাসকিন আহমেদ ও অধিনায়ক অলক কাপালি। শেষ পর্যন্ত ১৮.২ ওভার ব্যাট করা রাজশাহীর ইনিংস থামে মাত্র ১০৪ রানে।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

সিলেট ১৮০/৬ (২০ ওভার)
জেসন ৪২, আফিফ ২৮, লিটন ২৪
মুস্তাফিজ ৪৩/২, ডেসকাট ১৭/১

রাজশাহী ১০৪ (১৮.২ ওভার)
ফজলে মাহমুদ ৫০, জাকির ১৬
সোহেল ১৭/৩, নাওয়াজ ২২/৩

ফল: সিলেট সিক্সার্স ৭৬ রানে জয়ী।